HomeFreelancingব্লগিং থেকে আয় করার ১০ টি সহজ উপায়

ব্লগিং থেকে আয় করার ১০ টি সহজ উপায়

5/5 - (92 votes)

আমার বিশ্বাস যে, আপনি ব্লগিং থেকে আয় করার কথা ভাবছেন। যদি তাই হয় তাহলে আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন।  কেননা আজ আমরা আলোচনা করতে চলেছি কিভাবে ব্লগিং থেকে আয় করা যায় সেই সম্পর্কে।

ব্লগিং জগতের শুরুর দিকে মানুষ কেবল মাত্র তাদের শখের বশেই ব্যবহার করত। কিন্তু আধুনিক প্রযুক্তিগত পৃথিবী এখন এতটাই উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছে গেছে যে আপনি চাইলেই ব্লগিং থেকে আয় করতে পারেন হাজার হাজার টাকা।

এভাবে বলা যায় যে রঙিন কেউ এখন আর শখের বশে করে না বরং প্রতিমাসে হাজার থেকে লক্ষ টাকা উপার্জনের জন্য ব্লগিংকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে অনেকেই।

প্রতিনিয়ত মানুষ গুগলে সার্চ করে ব্লগ কি কিভাবে ব্লগ তৈরি করা যায় কিভাবে ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন করা যায় এবং ব্লগিং করে কি পরিমান আয় হয় সেই সম্পর্কে।

তো বন্ধুরা আপনারা যদি ব্লগিং সম্পর্কে জানতে চান এবং কিভাবে ব্লগিং করে অনলাইনে টাকা উপার্জন করা যায় সে বিষয়ে জানার আগ্রহ থাকে তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

কেননা আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের জানিয়ে দিব কিভাবে আপনি ব্লগিং শুরু করবেন এবং কিভাবে ব্লগিং থেকে আয় করবেন। 

প্রথমত আমি আপনাকে জানাতে চাই যে ব্লগিং থেকে বিভিন্ন উপায়ে অনলাইনের মাধ্যমে আয় করা যায়।  ব্লগিং করে কতগুলো উপায় অনলাইনে আয় করা যায় তার একটি তালিকা আমি নিচে তুলে ধরেছি।

ব্লগ থেকে কিভাবে আয় করবেন?

ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন করতে চাইলে প্রথমে যে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে সেটি হচ্ছে আপনার ব্লগের ট্রাফিক।  কেননা একটি ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগের প্রাণ হচ্ছে ট্রাফিক বা ভিজিটর। আরও সহজভাবে যদি বলতে চাই তাহলে শুনুন,  ধরে নিন আপনি একটি সুপার শপ খুলেছেন। ব্লগিং থেকে আয়

আপনার শপে যদি কোন কাস্টমার না আসে তাহলে কি আপনার বিক্রয় হবে? পক্ষান্তরে আপনি একটি ওয়েবসাইট কিভাবে ব্লগ তৈরি করেছেন তো আপনার ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগে যদি ভিজিটর না আসে তাহলে আপনি ব্লগ থেকে কোনোভাবেই ইনকাম করতে পারবেন না।

তাই আপনি যদি ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার ব্লগে কিভাবে ভিজিটর আসবে আপনি কিভাবে ভিজিটর নিয়ে আসবেন তা নিয়ে চিন্তা করতে হবে। 

ব্লগে কেন ভিজিটর আসে না?

আমি যদি উদাহরন দিয়ে বলতে চাই তাহলে আপনার ভালো হবে।  ধরে নিন আপনি যে সুপার শক্তি তৈরি করেছেন সেখানে কাস্টমার আসছে না কারণ তারা আপনার ওই সুপারশপ সম্পর্কে জানেনা।

এমনও হতে পারে আপনি যে সুপার্শপ তৈরি করেছেন এবং তাতে যে সমস্ত প্রোডাক্ট রেখেছেন তা মানুষের প্রয়োজন নেই।  এ কারণেই আপনার সুপারশপে কোন লোকজন আসে না। ব্লগিং থেকে আয়

 ঠিক একইভাবে আপনি যখন একটি ব্লগ তৈরি করবেন আপনার ব্লগ সম্পর্কে মানুষকে জানাতে হবে। পাশাপাশি এমন একটি জনপ্রিয় ব্লগিং নিস বা ব্লগিং টপিক নির্বাচন করতে হবে যার চাহিদা অনন্ত কাল থেকে যাবে।

তাহলে আপনি আপনার ব্লগে ভিজিটর পাবেন এবং বিপুল পরিমাণে টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

আপনার ব্লগ কিংবা ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়ানোর আরো একটি জনপ্রিয় কৌশল হচ্ছে আপনার ব্লগের এসইও।

এসইও কি? এটি কিভাবে কাজ করে?

আমরা সকলেই জানি যে, এসইও এর পূর্ণরূপ হচ্ছে “সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন”। যদি আমি সহজভাবে বলতে চাই তাহলে বলতে হয় যে,  যখন আমরা কোন ওয়ার্ড বা কোন শব্দ দ্বারা গুগল অথবা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করি, ব্লগিং থেকে আয়

তখন ঐ সমস্ত সার্চ ইঞ্জিনগুলো আমাদের কিছু রেজাল্ট দেখায়। তারপর যে ওয়েব সাইটের লিংকটি আমাদের পছন্দ হয় আমরা সেখানে ক্লিক করে উঠতে ওয়েবসাইট অথবা ব্লগ ভিজিট করি।

Best SEO plugin 2024
Best SEO plugin 2024

Best SEO plugin 2024 | ওয়েবসাইটের জন্য সেরা এসইও প্লাগইন

ঠিক এভাবেই আপনি যদি আপনার ব্লগে ভিজিটর বাড়িয়ে ইনকাম বাড়াতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার ব্লগের যত আর্টিকেল রয়েছে সে আর্টিকেলগুলো এসইও করতে হবে। 

তাহলেই দেখবেন আপনি প্রতিমাসে আপনার ব্লগে হাজার হাজার ভিজিটর পেয়ে যাবেন এবং আপনার ইনকাম এর পরিমাণ বেড়ে যাবে।

ব্লগিং থেকে আয় করার সবচেয়ে সেরা ১০ টি জনপ্রিয় উপায় 

আমি পূর্বে আপনাকে বলেছি ব্লগিং থেকে টাকা আয় করার অনেক গুলো উপায় রয়েছে।

তার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত উপায়গুলো নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করেছি।  তাহলে চলুন দেখে নেই সবচেয়ে সেরা উপায় গুলো সম্পর্কে যা দ্বারা ব্লগিং থেকে অনেক টাকা উপার্জন করা সম্ভব।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন

আমরা যারা বাংলা কনটেন্ট নিয়ে কাজ করে তাদের খুব ইচ্ছা থাকে তাদের ব্লগ সাইটে গুগল অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভাল নিয়ে ইনকাম করা। কিন্তু আপনি জেনে অবাক হবেন যে গুগল এডসেন্স থেকে আয় করার পাশাপাশি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে তার থেকেও অধিক আয় করতে পারবেন।

যদি  আপনি বাংলা কনটেন্ট নিয়ে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেন তাহলে আপনার ইনকাম একটু কম হবে। তাই আমি আপনাকে রিকোয়ারমেন্ট করব আপনি যদি ইংরেজিতে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে আপনি ইংরেজি ভাষায় আপনার ব্লগ পরিচালনা করতে পারেন। ব্লগিং থেকে আয়

সে ক্ষেত্রে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ব্লগ থেকে উপরজন অনেক বেশি হবে। আপনি যদি না জেনে থাকেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে তাহলে, এখানে ক্লিক করে বিস্তারিত জেনে নিতে পারেন।

  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে আয় করার সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি

বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক থেকে টাকা আয়

ব্লগিং জগতে ইনকামের কথা চিন্তা আসলে প্রথমেই যে বিষয়টি ব্লগারদের মাথায় ঘুরপাক খায় সেটি হচ্ছে বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক থেকে টাকা আয় করা। আমার জানাশোনা অনেক ব্লগার রয়েছেন যারা তাদের ব্লগে শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে প্রতি মাসে 30 থেকে 40 হাজার টাকা উপার্জন করেন।

আপনি চাইলে আপনার ব্লগে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ছাড়াই শুধুমাত্র গুগল এডসেন্স অথবা অন্যান্য বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক এর অ্যাপ্রভাল নিয়ে ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে জনপ্রিয়  কিছু এড নেটওয়ার্কগুলো হলো:

গুগল এডসেন্স এড টমসন কন্ডিশন অনুযায়ী যদি আপনার ব্লগ না হয় তাহলে আপনি গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভাল পাবেন না। সে ক্ষেত্রে গুগল এডসেন্স ব্যতীত অন্যান্য বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্কগুলোর শরণাপন্ন হতে হবে আপনাকে।

ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি করে ব্লগ থেকে আয়

আপনি হয়তো অবশ্যই জানেন ইন্টারনেটের যুগে আমাদের ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট এর পাশাপাশি হাজারো ডিজিটাল প্রোডাক্ট রয়েছে। ইন্টারনেটের এই চাহিদাসম্পন্ন যুগে

এসে, এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আপনার ব্লগে ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি করে আয় করতে পারেন।

আমাকে অনেকেই পূর্বের একটি আর্টিকেল এর কমেন্টে জানতে চেয়েছিলেন যে ডিজিটাল প্রোডাক্ট কি? এগুলো কিভাবে কাজ করে?

তাদের উদ্দেশ্যে জানিয়ে রাখি ডিজিটাল প্রোডাক্ট হল এমন কিছু অ্যাসেট, যা ধরা যায় না, ছোয়া যায়না কিন্তু তবুও প্রয়োজনীয়। যেমন : ব্লগিং থেকে আয়

  • রেডি ওয়েবসাইট
  •  ব্লগ থিমস
  •  ব্লগ
  •  ওয়ার্ডপ্রেস থিম
  •  ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন
  •  ই-বুক
  •  সফটওয়্যার এবং গেম
  •  ডোমেইন নাম
  •  ফেসবুক পেজ
  •  ইউটিউব চ্যানেল ইত্যাদি

এই ডিজিটাল প্রোডাক্ট গুলোর চাহিদা দিনে দিনে অনেক বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনার যদি ভাল ধারণা অথবা আইডিয়া থাকে তাহলে সেই ডিজিটাল প্রোডাক্ট গুলো আপনি আপনার ব্লগের মাধ্যমে বিক্রয় করতে পারবেন। এভাবেই আপনি ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি করে আপনার ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন। ব্লগিং থেকে আয়

অনলাইন কোর্স তৈরি করে ব্লগের মাধ্যমে আয়

বর্তমান সময়ে প্রতিযোগিতার এই দুনিয়ায় দক্ষতা এবং স্কিল এর সাথে পারফরম্যান্স বৃদ্ধি করতে এবং সুন্দর একটি ক্যারিয়ার দাঁড় করার জন্য সফট স্কিল এবং হার্ড স্কিলের দক্ষতা থাকা অনেক জরুরী।

তাই মানুষ এখন তথ্যপ্রযুক্তির যুগে বসে নেই। অনেকেই অনলাইনে আয় শুরু করতে চান, অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ ডেভলপার হতে চান, ওয়েব ডেভলপার হতে চান, গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে চান ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য কিংবা নিজের পার্সোনাল কাজের জন্য।

আর আপনি এই সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে যদি আপনার ঐ সমস্ত বিষয় সম্পর্কে ধারনা থাকে তাহলে, উক্ত বিষয় গুলো নিয়ে কোর্স তৈরি করে আপনি আপনার ব্লগের মাধ্যমে বিক্রয় করে ব্লক থেকে ঢাকায় করতে পারবেন।

যদি আপনি ভালো করে তৈরি করে আপনার কাস্টমারদের উপহার দিতে পারেন তাহলে উক্ত কাস্টমাররা আপনাকে আরো নতুন নতুন কাস্টমার এনে দিবে। ব্লগিং থেকে আয়

বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু অনলাইন কোর্স হচ্ছে: 

  • এসইও
  • ইংলিশ লার্নিং
  • কম্পিউটার ব্যাসিক
  • ইমেইল মার্কেটিং
  • সিপিএ
  • ডাটা এন্ট্রি
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন
  • লোগো ডিজাইন
  • মাইক্রোসফট
  • এডোবি
  • ভিডিও এডিটিং
  • ডিজিটাল মার্কেটিং
  • ওয়েব ভেভেলপমেন্ট
  • ওয়েব ডিজাইন, ইত্যাদি।

এছাড়াও অনেক হাজারো অনলাইন কোর্স রয়েছে। যে বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনার সবচেয়ে ভালো ধারণা রয়েছে,  আপনি সেই বিষয় নিয়ে অনলাইন কোর্স তৈরি করতে পারেন।

আপনি যদি একজন গৃহিনী অথবা শিক্ষিত বেকার তরুণ তরুণী হয়ে থাকেন, তবে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা কাজে লাগিয়ে শিক্ষামূলক অনলাইন কোর্স তৈরি করে সেগুলো ব্লগের মাধ্যমে বিক্রয় করতে পারেন। 

লোকাল বিজ্ঞাপন থেকে আয়

ব্লগ থেকে টাকা উপার্জন করার আরেকটি জনপ্রিয় মাধ্যম হল লোকাল বিজ্ঞাপন। অর্থাৎ মনে করুন আপনার বাড়ির পাশে একটি নতুন দোকান হয়েছে। 

তো উক্ত দোকান সম্পর্কে কেউ জানে না। এজন্য তিনি তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে মানুষকে জানানোর জন্য আপনার ব্লগে তার দোকানের একটি ব্যানার পাবলিশ করল। বিনিময় আপনাকে কিছু অর্থ প্রদান করল মূলত এটি লোকাল বিজ্ঞাপন।

তবে এটি নির্ভর করে একমাত্র আপনার ব্লগের ভিজিটর দের উপর। কেননা যখন আপনার ব্লগে প্রতিদিন হাজার হাজার ভিজিটর আসবে তখন বিভিন্ন ধরনের কোম্পানি আপনার ব্লগে বিজ্ঞাপন দিতে আপনার সাথে যোগাযোগ করবে। যার ফলে গুগল এডসেন্স এর চেয়েও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এবং লোকাল বিজ্ঞাপন থেকে আয়ের সম্ভাবনা অনেক বেশি।

গেস্ট পোস্টিং করে ব্লগ থেকে আয়

আমাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা নতুন ব্লগার।  সবে মাত্র একটি নতুন ডোমেইন হোস্টিং কিনে ওয়েবসাইট তৈরি করেছেন।  ব্লগিং থেকে আয়

তো তাদের ওয়েবসাইটে ভিজিটর বাড়ানোর জন্য এমনকি তাদের ডোমেইন অথরিটি কিংবা জনপ্রিয়তা বাড়ানোর জন্য আপনার ওয়েব সাইটের ব্যাকলিংক নিতে পারে।

অর্থাৎ উক্ত নতুন ব্লগার আপনার ওয়েবসাইটে একটি কনটেন্ট রাইটিং করল,  এবং কিছু কিছু জায়গায় টেক্সট এর সাথে তার ওয়েবসাইটের লিংক জুড়ে দিলো।

আর আপনি সেই পোস্ট পাবলিশ করে দিলেন।  এতে করে ওই নতুন ব্লগার এর ওয়েবসাইটে আপনার ওয়েবসাইট থেকে ভিজিটর যাওয়ার সম্ভাবনা 90 শতাংশ থেকে যায়।  

মূলত এটাকেই বলে ব্যাকলিংক যা হয়ে থাকে গেস্ট পোস্টিং এর আন্ডারে।  এভাবেই আপনি চাইলে আপনার ওয়েবসাইটে গেস্ট পোস্টিং সিস্টেম চালু করে প্রতি মাসে 20 থেকে 30 হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

পেইড রিভিউ এর মাধ্যমে ব্লগ থেকে আয়

আপনি যদি টেকনোলজি কিংবা রিভিউ টপিক নিয়ে ব্লগিং শুরু করে থাকেন তাহলে আপনার জন্য সুখবর।  কেননা পেইড রিভিউ ব্লগিংয়ের ক্ষেত্রে টেকনোলজি কিংবা আরিবিক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

আপনি হয়তো দেখে থাকবেন ফেসবুকে অনেক ব্লগার রয়েছে যারা কিছু টাকার বিনিময়ে কোন একটি সপের প্রোডাক্টের ভিডিও করে সেখানে আপলোড করে।ব্লগিং থেকে আয়

আর যারা ভিডিও কনটেন্ট তৈরি করে না তারা কেবলমাত্র পেইজের মাধ্যমে তাদের ব্লকে উক্ত দোকানের রিভিউ দেয়। 

এর জন্য নির্দিষ্ট একটি অ্যামাউন্ট উক্ত দোকানদারের কাছ থেকে চার্জ করে। আপনি চাইলে আপনার ব্লগ যখন জনপ্রিয় হবে তখন যে কোন কোম্পানির দোকানের কাজ থেকে পেনড্রাইভে নিয়ে ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন।

অনলাইন সার্ভিস দিয়ে ব্লগ থেকে আয়

অনলাইন সার্ভিস হচ্ছে এমন একটি বিষয় যার চাহিদা কখনই কমবে না বরং দিন দিন বেড়েই চলছে।  অর্থাৎ আপনি যদি চিন্তা করেন আপনি ব্লগ থেকে আয় করবেন তো প্রথমেই আপনার একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ প্রয়োজন হবে।

সে ক্ষেত্রে যদি আপনি নিজে ওয়েবসাইট তৈরি করতে না পারেন তাহলে অবশ্যই কারও না কারও কাছ থেকে তৈরি করে নিতে হবে।

ব্লগিং থেকে আয় করার সহজ উপায়
ব্লগিং থেকে আয় করার সহজ উপায়

ধরে নিন আমি অনেকের ওয়েবসাইট তৈরি করে দেই যাতে তারা তাদের ওয়েবসাইট থেকে বিভিন্ন প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারে এবং গুগল এডসেন্স কিংবা অন্যান্য বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্ক এর মাধ্যমে প্রতি মাসে 10 থেকে 12 হাজার টাকা আয় করতে পারে।

এমনকি আমি প্রোফাইল ফেসবুক পেজ তৈরি করে দেই ইউটিউব চ্যানেল প্রমোট করে দেই ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বাড়িয়ে দেই এভাবে আরো অনলাইনে অনেক সার্ভিস আমি প্রোভাইড করে থাকি।

আপনিও চাইলে আপনার দক্ষতা অনুযায়ী বিভিন্ন বিষয়ে অনলাইন সার্ভিস দিয়ে ব্লগ থেকে আয় করতে পারবেন খুব সহজেই।

পেইড আর্টিকেল থেকে টাকা ইনকাম

এই বিষয়টি আপনার কাছে মোটেও জটিল নয় বরং আপনাকে জানাতে আমার অনেক ভালো লাগবে।  

আপনি হয়তো খেয়াল করেছেন এমন কিছু ব্লগ ভাই এমন কিছু ওয়েব সাইট রয়েছে যেখানে আপনি প্রবেশ করার পর উক্ত ব্লগে কিছু কনটেন্ট আপনি দেখতে পারেন এবং কিছু কনটেন্ট হাইড করা থাকে যেগুলো আপনি দেখতে পারেন না।

মূলত সেটি হচ্ছে পেইড আর্টিকেল অথবা প্লীজ কন্টাক্ট। অর্থাৎ Crickbaz.com আপনি অবশ্যই যেকোনো খেলার স্কোর দেখা থাকবেন।  ব্লগিং থেকে আয়

পাশাপাশি আরও কিছু কন্টেন হয়তো আপনার চোখে পড়েছে যেগুলো দেখা যায় না। মূলত ওই বিষয়গুলোই হচ্ছে পেইড আর্টিকেল। 

অর্থাৎ আরও সহজভাবে বলতে গেলে বলা যায় যে,  ধরুন আপনি একটা বিষয় সম্পর্কে দীর্ঘদিন ধরে কষ্ট করে রিসার্চ করেছেন।  

এবং আপনি চাচ্ছেন আপনার এই কষ্টের একটি মূল্য পেতে। সে ক্ষেত্রে আপনি আপনার ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগে মেম্বারশিপ সিস্টেম চালু রাখতে পারেন।  

অর্থাৎ যদি কেউ ঐ সকল আর্টিকেল পড়তে চায় কিংবা ভিডিও কনটেন্ট দেখতে চায় তাহলে অবশ্যই তাকে নির্দিষ্ট ফিস দিয়ে আপনার ওয়েব সাইটে রেজিস্ট্রেশন করার মাধ্যমে তা দেখতে পারবে এবং পড়তে পারবে।

ওয়ার্ডপ্রেসের জন্য জনপ্রিয় কিছু মেম্বারশিপ প্লাগিন নিচে দেয়া হল:

  • MemberPress.
  • OptinMonster.
  • S2Member.
  • Paid Memberships Pro.
  • MemberMouse.
  • WooCommerce Memberships.
  • Restrict Content Pro.
  • aMember Pro.

আপনি চাইলে উপরোক্ত প্লাগিনগুলো দিয়ে আপনার ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগকে মেম্বারশিপ সিস্টেম করতে পারবেন। যখন কোন মেম্বার আপনার ওয়েবসাইটে ডাউনলোড করতে আসবে বা কোন আর্টিকেল পড়তে আসবে তখন তাকে আপনার ওয়েব সাইটে  সামান্য কিছু টাকার বিনিময় রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। 

অনলাইন শপ তৈরি করে ব্লগের মাধ্যমে আয়

উপরোক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনার যদি বিরক্তি আসে তাহলে আপনি চাইলে আপনার ব্লগে অনলাইন সব তৈরি করে ব্লগ থেকেই টাকা উপার্জন করতে পারবেন। ব্লগিং থেকে আয়

এক্ষেত্রে আপনার ব্লগিং নিস বা ব্লগিং টপিক তাকে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে।

মনে করলাম আপনি একটি টেক রিভিউ ওয়েবসাইট অথবা ব্লক তৈরি করেছেন তো সেখানে যদি আপনি মেডিসিন বিক্রয়ের জন্য মানুষকে ইনভাইট করেন তাহলে তো আর আসে মেডিসিন কিনবে না। 

কারণ তার দরকার টেক রিলেটেড কোন বস্তু।  এজন্য আমি আপনাকে রিকোয়ারমেন্ট করবো আপনি যে প্রকৃত নিয়ে আপনার ব্লগিং শুরু করেছেন ঠিক সেই রিলেটেড কিছু প্রোডাক্ট আপনার ওয়েবসাইটে বিক্রয় করার মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

Homepage shobarjobs.com
Category Freelancing
Last Update Just Now
Written by Ashraful Islam

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Updated

Recent