HomeTechnologyগুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয়? (100% Working)

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয়? (100% Working)

5/5 - (184 votes)

আপনি হয়তো গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? এ সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন। আবার অনেকেই কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয় সে সম্পর্কে জানার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তাই গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি এবং কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয় সে সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলে বিস্তারিত আলোচনা করব। 

বন্ধুগণ যখন থেকে ইন্টারনেট চালু হয়েছে তখন থেকে প্রযুক্তিগত দুনিয়া আরো উন্নতির দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এর ফলে মানুষের জীবনযাত্রার মান আরো অনেক দূর এগিয়ে গিয়েছে। যখন থেকে ইন্টারনেট সেবা সবার জন্য উন্মুক্ত হয়েছে তখন থেকে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন যেন থামছেই না বরং তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

মহাবিশ্বে এই অগ্রগতির ধারক এবং বাহক হিসেবে যদি কোন নামী-দামী কিংবা জনপ্রিয় কোন প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে আসে তা হচ্ছে গুগল। গুগল এমন একটি প্রতিষ্ঠান যা ছাড়া বর্তমান ইন্টারনেট জগতে কখনো কোন উন্নয়ন কল্পনাই করা যায় না। Google কে বলা হয় মহাবিশ্বের সবচেয়ে বড় টেক জায়ান্ট কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান। 

আমরা সকলেই জানি বিশ্বের সর্ববৃহৎ সার্চ ইঞ্জিন হচ্ছে গুগল। তবে গুগল কেবলমাত্র সার্চ ইঞ্জিনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় বরং গুগলের রয়েছে অসংখ্য প্রোডাক্ট বা সার্ভিস। গুগলের আবিষ্কৃত নানাবিদ প্রয়োজনীয় সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয় কল্যাণকর এমন কিছু প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস রয়েছে যেগুলোর প্রশংসা অনিবার্য। 

আর্থিক তারই ধারাবাহিকতায় আজকে আমরা গুগলের একটি ইম্পর্টেন্ট এবং জনপ্রিয় প্রোডাক্ট সম্পর্কে আলোচনা করব আর তা হল (google assistant) গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট। 

তো বন্ধুগণ! আজকের আর্টিকেলের মূল টপিক হল গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? এবং গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং কিভাবে করবেন, সেই সাথে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কিভাবে কাজ করে এ সকল বিষয়বস্তু নিয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জানার চেষ্টা করব। 

যেহেতু আলোচনার মূল বিষয়বস্তু হচ্ছে google assistant তাই এ সম্পর্কে আমাদের সঠিক ধারণা অর্জন করা দরকার। তো চলুন জেনে নেই গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি:

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? 

Google assistant সম্পর্কে সঠিক ধারণা পেতে অবশ্যই খুব ভালোভাবে জেনে নিতে হবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি। তা না হলে আপনি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি এর সম্পর্কে আবারও গুগলে সার্চ করতেই থাকবেন।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয়?
গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি? কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয়?

সহজ ভাষায় বলতে গেলে “গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট মূলত গুগলের ভয়েস কন্ট্রোলড যা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা অর্থাৎ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এমন একটি রোবোটিক প্রোগ্রাম যা মানুষের স্বভাবের মত আচরণ করতে পারে। বর্তমান সময়ে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি (Ai) ব্যাপক হারে দৈনন্দিন জীবনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

ফলস্বরূপ বিশ্বের সর্ববৃহৎ টেকজায়ান্ট google এর প্রতিষ্ঠান গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এরপর গুগল বার্ডস নামে একটি নতুন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি তথা এই আই প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে।

অ্যান্ড্রয়েড,  ল্যাপটপ,  কিংবা ডেক্সটপ সব ধরনের ডিভাইসেই গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করতে পারবেন। শুধুমাত্র ভয়েস কমান্ড দিয়ে যেকোনো প্রযুক্তিগত বিষয় বা ডিভাইস পরিচালনা করার জন্য গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট একটি যুগান্তকার প্রযুক্তি।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সি বা এআই টেকনোলজি বুদ্ধিমত্তার জগতেও গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সবার ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহারের জন্য জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

 গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর ইতিহাসঃ

বিশ্বের সর্ববৃহৎ জায়ান্ট গুগল প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিন কেন্দ্র করে। গুগলের সেই সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করার সময় একটি ভয়েস কমান্ড ব্যবহার করার অপশন ছিল এবং এখনো তা আছে। আর সেই ভয়েস সার্চ কে কেন্দ্র করেই পরবর্তীতে গবেষণা করে টেক জায়ান্ট কোম্পানি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট আবিষ্কার করে। মূলত এটি ছিল google assistant এর সূচনা।

সর্বপ্রথম ২০১১ সালে শুধুমাত্র ল্যাপটপ কিংবা ডেক্সটপ ডিভাইসে এই ফিচারটি থাকলেও বর্তমান সময়ে আমরা প্রত্যেকটি স্মার্টফোনে তা ব্যবহার করতে পারছি। পরবর্তীতে ২০১২ সালে গুগল নাউ নামে আরেকটি নতুন ভার্সন প্রকাশিত হয়। তবে মজার ব্যাপার হলো গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর পুরনো নামই ছিল গুগল নাউ।

এগুলো পড়তে পারেন,

আর তার ঐ ধারাবাহিকতায় সর্বশেষ  ২০১৬ সালে ফাইনালি পৃথিবীর সকল টেকনোলজি প্রেমীদের কাছে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট উন্মোচিত হয়। বর্তমান সময়ে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ছাড়া কোন ধরনের স্মার্ট ডিভাইস কল্পনাও করা যায় না। তাই দৈনন্দিন জীবনে যতগুলো ইলেকট্রনিক্স স্মার্ট ডিভাইস রয়েছে সেই ডিভাইস গুলোতে কোন না কোন ভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কার্যকরী ভূমিকা পালন করছে।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কিভাবে কাজ করে

যদি আপনি নিঃসঙ্গতা অনুভব করেন এবং আপনার সাথে কথা বলার মত যদি কোন সঙ্গী না থাকে তাহলে আপনি চাইলে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর সাথে আড্ডা দিতে পারেন।

ব্যাপারটি কৌতুক মনে হলেও সত্যি আপনি চাইলে আপনার নিঃসঙ্গতা কাটানোর জন্য আপনি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এ ভয়েস কমান্ড দিয়ে তার সাথে কথা বলতে পারবেন এবং আপনার মনের দুঃখ কষ্ট গুলো শেয়ার করতে পারবেন। তবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট মূলত এর জন্য তৈরি করা হয়নি।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট (Google assistant) এর মূল উদ্দেশ্য এবং এটি কিভাবে কাজ করে তার সম্পর্কে নিজে আলোচনা করা হলোঃ

প্রশ্নোত্তর ফিচার: আপনি যদি google এ কোন প্রশ্ন করতে চান তাহলে google assistant ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে আপনার যে কোন প্রশ্ন টাইপ করে লিখতে হবে না। গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট চালু করে শুধুমাত্র ভয়েস কমান্ড দিয়ে অতি দ্রুত যেকোনো ধরনের প্রশ্নের উত্তর পেতে পারেন।

ভয়েস ফিচার: গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর মাধ্যমে যেকোনো ধরনের সহযোগিতা পেতে কেবলমাত্র ভয়েস দ্বারা কন্ট্রোল করতে পারবেন পাশাপাশি টেক্সট এর মাধ্যমেও কমান্ড দিতে পারবেন। 

তবে আপনি যদি কোন একটি গান শুনতে চান তবে সে গানের লিরিক্স আপনার মনে নেই তারপরেও শুধু গুন গুনিয়ে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কে বোঝাতে পারেন আসলে আপনি কোন গান শুনতে চাইছেন। মজার ব্যাপার হল আপনি যে গান গুনগুনিয়ে google assistant কে বোঝানোর চেষ্টা করেছেন তাৎক্ষণিকভাবে আপনাকে সেই গান শুনিয়ে দিবেন।

সময় বাঁচাবে: ধরুন আপনার হাতে সময় একদমই কম যে কোন বিষয় তাৎক্ষণিকভাবে জানতে হবে। আপনি যদি আপনার মুখের ভাষা লিখে টাইপ করতে চান তাহলে অনেক সময় প্রয়োজন হয়। সেক্ষেত্রে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর সাথে কথা বলেই আপনার কাঙ্ক্ষিত বিষয় সার্চ করতে পারবেন।

মিউজিক কন্ট্রোল: গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করে যে কোন ধরনের মিউজিক শুনতে পারবেন এবং মিউজিক বন্ধ করতে পারবেন। মনে করুন আপনার ফোন টেবিল এর মধ্যে রয়েছে এবং আপনি দুই হাত দিয়ে ময়দা গুলাচ্ছেন রুটি করার জন্য। এমত অবস্থায় মোবাইলের স্ক্রিনের টাচ না করেই শুধুমাত্র ভয়েস কমান্ড দিয়ে যেকোনো ধরনের মিউজিক প্লে করতে পারবেন এবং বন্ধ করতে পারবেন।

এপ্লিকেশন ব্যবহার: আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনে অসংখ্য এপ্লিকেশন রয়েছে। অনেকগুলো অ্যাপ্লিকেশনের ভিড়ে হয়তো আপনার কাঙ্ক্ষিত মোবাইল এপ্স খুঁজে পাচ্ছেন না। সে ক্ষেত্রে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এ উক্ত অ্যাপ্লিকেশনের নাম বলে কমেন্ট করলেই সেই অ্যাপ্লিকেশন চালু হয়ে যাবে। উদাহরণস্বরূপ যদি আপনি গুগল এসিস্টেন্ট চালু করে শুধুমাত্র ভয়েস কমান্ড দেন  “ওপেন youtube” তাহলে সঙ্গে সঙ্গে ইউটিউব অ্যাপ্লিকেশন ওপেন হয়ে যাবে। 

নোটীফিকেশন রিডিং: একটি স্মার্টফোনে সারাদিন অনেকগুলো মেসেজ কিংবা নোটিফিকেশন আসে। অনেকের ক্ষেত্রে সেই নোটিফিকেশন অথবা মেসেজগুলো পড়ার সময় থাকে না। তো আপনি যদি চান তবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট দিয়ে নোটিফিকেশন যে কোন মেসেজ পড়িয়ে নিতে পারবেন।

এলার্ম এবং টাইম সেট: বিভিন্ন প্রয়োজনে আমাদের স্মার্টফোনে এলার্ম এবং টাইম সেট করতে হয়। এক্ষেত্রে সঠিক এবং নির্ভুলভাবে আপনার স্মার্টফোনে এলার্ম এবং টাইম সেট করতে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কাজে লাগাতে পারেন।

ওয়েদার চেক: বর্তমান সময়ে বৈশ্বিক উষ্ণতার ফলে আমাদের পৃথিবীতে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন রকম আবহাওয়ার পরিবর্তন দেখা যায়। হয়তো কোন জায়গায় এখন বৃষ্টি আবার কিছুক্ষণ পরেই রোদ। তো আপনার আশপাশে কালকে ঝড় হবে,  বৃষ্টি হবে,  নাকি রোদ উঠবে  সেই সাথে সকল আবহাওয়া সম্পর্কিত তথ্য আপনার হাতের স্মার্টফোনে পেতে অবশ্যই আপনি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করতে পারবেন।

ভয়েস মেসেজ: আপনি যদি কাউকে এসএমএস করতে চান তাহলে হাতের টাইপ না করে কেবলমাত্র গুগল এসিস্টেন্ট ব্যবহার করে ভয়েস কমান্ড দিয়েই তাকে মেসেজ করতে পারবেন।

ভয়েস কল: আপনার কন্টাক্ট লিস্ট এ যদি হাজারো নাম্বার থাকে আর সেই নাম্বার খোজার ঝামেলা আপনাকে নিতে হবে না। কেননা শুধুমাত্র গুগল ভয়েস অ্যাসিস্ট্যান্ট চালু করেই শুধুমাত্র নাম ইন্ডিকেট করে কল বললেই কাঙ্খিত নাম্বারে কল চলে যাবে।

ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস কন্ট্রোল: বর্তমান সময়ে এই ব্যাপারটি সম্পর্কে সবাই সচেতন। অর্থাৎ ধরুন আপনি একটি অ্যান্ড্রয়েড স্মার্ট টেলিভিশন কিনতে গিয়েছেন যদি সেখানে ভয়েস কন্ট্রোল না থাকে তাহলে আপনি কিনতেই চান না। তাই না!

এখনকার সময়ে যতগুলো স্মার্ট টেলিভিশন রয়েছে সবগুলো স্মার্ট টেলিভিশনেই গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট (google assistant) দেয়া থাকে। এর ফলে আপনাকে রিমোট দিয়ে টিভির চ্যানেল পরিবর্তন করতে হয় না। 

ঠিক একই রকম ভাবে আমার রুমে একটি ইলেকট্রিক ফ্যান রয়েছে, যে ফ্যানটি আমার স্মার্ট ফোনের সাথে কানেক্টেড। আমি আমার এন্ড্রয়েড স্মার্টফোনে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট (google assistant) দ্বারা সেই ফ্যানকে পরিচালনা করতে পারি।

এছাড়াও দিন দিন গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট (google assistant) সংযুক্ত আরও অনেক ইলেকট্রনিক ডিভাইস বাজারে পাওয়া যাচ্ছে, যেগুলো শুধুমাত্র গুগল ভয়েস দ্বারাই পরিচালনা করা যায়। 

অবশ্যই পড়বেন:

কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয়? 

আপনার স্মার্ট ফোনে কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয় তা নিয়ে আর চিন্তা করতে হবে না। শুধুমাত্র কয়েকটি গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং ঠিক করলেই আপনি google assistant আপনার স্মার্টফোনে ব্যবহার করতে পারবেন।

গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি সেটিং কিভাবে করবেন
গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং কিভাবে করবেন

আর্টিকেলের এই সেকশনে মোবাইলে কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং করতে হয় তা সম্পর্কে আমরা জানবো।

তাহলে চলুন দেখে নেই কিভাবে আপনি আপনার স্মার্ট ফোনে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং এবং চালু করবেন।

  • প্রথমে আপনার স্মার্টফোনে থাকা গুগল অ্যাপ্লিকেশন ওপেন করুন।
  • এরপর একদম উপরের অংশে আপনার যে জিমেইল অ্যাকাউন্ট প্রোফাইল রয়েছে তার আইকন দেখতে পারবেন। সেখানে ক্লিক করুন।
  • একটু নিচে লক্ষ্য করলে settings অপশন দেখতে পারবেন। সেখানে ক্লিক করুন।
  • settings অপশনটিতে ক্লিক করার পর গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ( Google Assistant) অপশনটিতে ক্লিক করুন। এই সেই কাঙ্ক্ষিত গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট।
  • অ্যাসিস্ট্যান্ট অপশনটিতে ক্লিক করার পর নিচের দিকে চলে আসুন। এরপর অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিভাইস এর নিচে থাকা ফোন অপশন দেখতে পাচ্ছেন! সেই Phone অপশনটিতে ট্যাপ করুন।
  • ফোন অপশন এ ক্লিক করার পর আপনি একটি নতুন ইন্টারফেস দেখতে পারবেন। উপরের দিকে Google Assistant অপশনটি দেখতে পারবেন। মূল কাজ এখানেই। Google Assistant এই অপশনটিকে এখান থেকে অ্যাক্টিভ বা ইনেবল করে দিন।
  • ফাইনালি সবশেষে ভয়েস ম্যাচ এর নিচে লক্ষ্য করুন এবং Hey google বাটনে ক্লিক করে সক্রিয় করে দিন। ব্যাস গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং (google assistant setting) শেষ।

    গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং
    গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং

উপরের এই পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার স্মার্টফোনে অথবা যেকোনো ধরনের স্মার্ট ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট চালু করতে করতে পারবেন। এবং একবার গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং সম্পূর্ণভাবে হয়ে গেলে আপনাকে আর কোনো ঝামেলা পোহাতে হবে না।

Homepage shobarjobs.com
Category Technology
Last Update Just Now
Written by Ashraful Islam

উপসংহার

আমার এবং আপনার জনপ্রিয় ব্লগ সাইট সবারজবস  ডটকম এর টেকনোলজি ক্যাটাগরির আজকের আর্টিকেলে আমরা জানতে এবং শিখতে পেরেছি যে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট কি, গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর ইতিহাস এবং গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট সেটিং কিভাবে করতে হয় তা সম্পর্কে।

সেই সাথে আপনার স্মার্টফোনে কিভাবে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট ব্যবহার করবেন এ সম্পর্কেও দিকনির্দেশনা দিয়েছি।

আশা করছি সম্পূর্ণ আর্টিকেল মনোযোগ দিয়ে পড়ে থাকলে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর মূল কনসেপ্ট সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা হয়ে গিয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তি রিলেটেড সকল ধরনের আপডেট পেতে অবশ্যই আমার এই ব্লক প্রতিনিয়ত ভিজিট করুন। এবং পরবর্তী নতুন আর্টিকেল এর নোটিফিকেশন আপনার স্মার্টফোন কিংবা ডিভাইসে পাবার জন্য অবশ্যই ব্লগটিকে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন। ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Updated

Recent